আজ ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

করিমগঞ্জের গুজাদিয়ার বন্ধুগোমরা বহ্নি গ্রামে ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বা এক রমণীসহ ৩ ব্যক্তি সন্ত্রাসী আক্রমণে মৃত্যুশয্যায়!

 জায়গার দখলদারিত্ব নিতে দ্বীন ইসলামসহ ৮ মাসের এক অন্তঃসত্ত্বা রমণীকে ও তার স্বামীকে মারধর করেছে তার নিকটতম এক প্রতিবেশি।গত ৩১ আগস্ট সকাল ১০ ঘটিকায় করিমগঞ্জের বন্ধুগোমরা বহ্নি গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, দ্বীন ইসলাম ও তার পূর্বপুরুষগণ ১২০ বছর আগ থেকেই তাদের ভিটে বাড়িতে বসবাস করে আসছে। হঠাৎ সেদিন তার সন্নিকটস্থ বিএনপির নেতা হাফিজ উদ্দিন(৬০)এ জায়গাটি দ্বীন ইসলামকে ছেড়ে দিতে বলেন।
দ্বীন ইসলাম তার প্রতি উত্তরে বলেন, আমার জায়গার কাগজপত্র আছে। আমি কেন তা ছেড়ে দেব? এতে ক্রোধান্বিত হয়ে অশ্লীল বাক্য প্রয়োগের পর হাফিজ বলেন কিসের কাগজপত্র? তখন দ্বীন ইসলাম গ্রামবাসীকে নিয়ে আলোচনা করার জন্য অনুরোধ করেন। এতে আরো ক্ষীপ্ত হয়ে দ্বীন ইসলামের বসত ঘরটি ভেঙ্গে ফেলেন।
এমতাবস্তায় বাঁধা দিতে গেলে তাদেরই শামছুর রহমান (৫৫) দ্বীন ইসলাম ও তার পরিবার পরিজনদের খুন করার উদ্দেশ্যে দেশীয় অস্ত্রাদি নিয়ে হাফিজ উদ্দিনসহ তার ভ্রাতৃবর্গকে আহবান জানায়। তার হুকুমে সাড়া দিয়ে হাফিজ উদ্দিন(৬০), মহর উদ্দিন (৬৮), মফিজ উদ্দিন (৬৫), মহিজ উদ্দিন (৬২), দুলাল মিয়া(৫২), গেন্দু মিয়া (৪৫), আব্দুস সাত্তার(৪৯) সর্বসাং বন্ধুগোমরা বহ্নির নামের লোকজন যে যা পারে তাই নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে। দ্বীন ইসলামসহ যাকেই সামনে পেয়েছে তাকেই এসব সন্ত্রাসীরা মারাত্বকভাবে আহত করেছে। ওরা কল্পনা খাতুন(৪২)কে উরুর নিচে গুপ্ত আঘাত করে মারাত্মকভাবে আহত করে। এমন কী রেহাই পায়নি ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বা দ্বীন ইসলামের ভাতিজী সাবিকুন্নাহার মন্ডুবাও। তাকে মারাত্মকভাবে আহত করে মাটিতে ফেলে রাখলে একব্যক্তি থানায় খবর দেন। থানা থেকে পুলিশ এসে এ অন্তঃসত্ত্বা মহিলাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।
উল্লেখ্য, যে এই অন্তঃসত্ত্বার স্বামী মজিবুর রহমান তার স্ত্রীকে রক্ষা করতে এলে তাকেও দা দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম করে।বর্তমানে অন্তসত্ত্বা সাবিকুন্নাহার মন্ডুবা ময়মনসিংহ চরপাড়া হাসপাতালে মূমুর্ষ অবস্থায় কাতরাচ্ছে। প্রাণ তার ওষ্ঠাগত। বাকীরা আছে কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় এলাকাবাসী একত্রিত হয়ে মঙ্গলবার উপযুক্ত বিচারের জন্য নানা শ্লোগানে প্রকম্পিত করে এবং প্রশাসন যেন দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করেন সেই দাবি উত্থাপন করেন। এ ব্যাপারে করিমগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     একই ক্যাটাগরিতে আরো সংবাদ